শিরোনাম

শিক্ষাবিদ আব্দুল বারী ভূঁইয়া

রামপালের কৃতিমুখ

মাহবুব আলম জয় :শিক্ষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিকাশে নিজের উন্নত জীবনের কথা না ভেবে তিনি এলাকায় শিক্ষা বিস্তারে রেখেছেন অগ্রনী ভূমিকা। সভ্যতার এই নগরীতে তার অবদান এখনো ছড়িয়ে যাচ্ছে আলো। তিনি আব্দুল বারী ভূঁইয়া। তিনি মুন্সীগঞ্জ সদরের রামপাল ইউনিয়নের সিপাহীপড়া গ্রামে ১৮৮৮ সালের ৭ মে জন্ম গ্রহণ করেন। সেই যুগে শিক্ষা লাভ করা খুবই দূলর্ভ ছিল। তিনি ১৯০৩ সালে বজ্রযোগিনী উচ্চ বিদ্যালয় হতে এন্ট্রাস এবং ১৯০৫ সালে কলিকাতা প্রেসিডেন্ট কলেজ হতে এফ এ পাস করেন।তারপর বরিশাল কলেজে ভর্তি হন কিন্তু ব্রিটিশবিরোধী স্বদেশী আন্দোলনের ফলে তিনি পরীক্ষা দেয়া হতে বঞ্চিত হন। তিনি নিজ এলাকায় শিক্ষা বিস্তারের জন্য রামপাল এন বি এম উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। এটি ১৯২০ সালে মক্তব, ১৯২৮ সালে জুনিয়র মাদরাসা এবং ১৯৩৩ সালে উচ্চ বিদ্যালয় হিসবে প্রতিষ্ঠা পায়। তিনি সাধারন শিক্ষক হিসেবে বিদ্যালয়ে ব্রতী হন। শিক্ষা বিস্তারের পাশাপাশি তিনি সমাজ কর্মে নিজেকে নিয়োজিত করেন।তিনি শিক্ষার্থী যোগার ও বিদ্যালয়েরর খরচ যোগানের জন্য বাড়ি বাড়ি ঘুরে মুষ্টি চাউল সংগ্র করেন বলে জানা যায়।

 

আব্দুল বারী ভূইয়া তৎকালীন বিক্রমপুর পরগনায় অন্যতম জ্ঞানী ও গুনী হিসবে অন্যতম ছিলেন। ১৯৩৬ সালে তিনি ইউনিয়ন বোর্ডেরর সদস্য এবং ১৯৪০ সালে ইউনিয়ন বোর্ডের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। এই পদে তিনি একটানা আঠার বছর বহাল থাকেন। ১৯৫৪ সালে তিনি জেলা বোর্ডের সদস্য নির্বাচিত হন এবং জুড়ি বোর্ডের সদস্য হিসেবে কাজ করেন। তিনি ১৯৬৪ সালে ২ জুলাই নিজ গৃহে পরলোকগমন করেন। সহজ ও সরল জীবন করতেন তিনি। তার প্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়ের মসজিদের পাশে তাকে শায়িত করা হয়।

 

আ/ক/২

 

Be the first to comment on "শিক্ষাবিদ আব্দুল বারী ভূঁইয়া"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*