শিরোনাম

সারাদেশে বজ্রপাতে ১৫ জনের মৃত্যু, আহত ১৫

ঢাকা: সময়টা ঝড়ের। বজ্রপাত হবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু ঝড়-বজ্রপাতে প্রতিদিন কোথাও না কোথাও মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। আজও সারাদেশে বজ্রপাতে বাবা-ছেলেসহ ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরো ১৫ জন।

সিরাজগঞ্জ: জেলায় পৃথক স্থানে বজ্রপাতে বাবা-ছেলেসহ পাঁচজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো চারজন। রোববার সকালে বজ্রপাতে শাহজাদপুর উপজেলার ছয়আনি গ্রামে দুজন, কাজিপুর উপজেলার ডিগ্রি তেকানী চর গ্রামে দুজন ও কামারখন্দ উপজেলার পেস্তক কুড়া গ্রামে একজন নিহত হন। নিহতরা হলেন- ছয়আনি গ্রামের ফারুক খানের ছেলে নাবিল ও রাশেদুল ইসলামের ছেলে পলিন, ডিগ্রি তেকানী গ্রামের শামছুল মণ্ডল ও তার ছেলে আরমান এবং কামারখন্দের পেস্তককুড়া গ্রামের আহের মণ্ডলের ছেলে কাদের হোসেন।

জানা যায়, রোববার সকালে আম কুড়াতে গিয়ে বজ্রপাতে নাবিল ও পলিনের মৃত্যু হয়। এ সময় আরো চারজন আহত হন। পরে আহতদের উদ্ধার করে শাহজাদপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানান মেডিক্যাল অফিসার রাজিবুল ইসলাম।

কাজিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হারুন-অর রশিদ বলেন, সকালে ডিগ্রি তেকানী চরে ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে বাদাম তুলছিলেন শামছুল। এ সময় হঠাৎ বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাত হলে দুজনেই আহত হন। তাদের উদ্ধার করে কাজিপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নেয়ার পথে বাবা ও ছেলের মৃত্যু হয়। অপরদিকে, পেস্তককুড়ায় বাড়ির পাশে ধানক্ষেতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই কাদেরের মৃত্যু হয়।

অন্যদিকে, রোববার বেলা সাড়ে ১০টার সময় পেস্তককুড়ায় বাড়ির পাশে ধানক্ষেতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে কৃষক কাদের হোসেন শরীর ঝলসে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘাষণা করেন। কামারখদ উপজলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা. তানজিলা কৃষকের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মাগুরা: সদর অক্কুর পাড়া ও রায়গ্রাম এবং শালিখা উপজেলার বুনাগাতী গ্রামে বজ্রপাতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন- অক্কুর পাড়ার ভ্যানচালক শামীম, ব্লুগ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে আলম ও জয়পুরহাটের মনপুরা এলাকার আলম মিয়ার ছেলে মেহেদী।

মাগুরা সদর থানার এসআই আশ্রাফ হোসেন জানান, ঝড়-বৃষ্টির সময় ভ্যানচালক শামীম মাগুরা থেকে শ্রীপুরের দিকে যাচ্ছিলেন। আর মাগুরা থেকে বাড়ি ফেরার পথে রায়গ্রামে বজ্রপাতে শিকার হন আলম। অন্যদিকে, শালিখার বুনাগাতী এলাকায় মোবাইল ফোন টাওয়ারে কাজ করার সময় বজ্রপাতের শিকার হন মেহেদী। তাকে হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন বলে জানান মাগুরা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক পরীক্ষিত পাল।

নোয়াখালী: পৌরসভার লক্ষ্মীনারায়ণপুর গ্রামে বজ্রপাতে ইকবাল হাসনাত পিয়াল নামে এক স্কুলছাত্র মারা গেছে। আজ সকাল সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। সে নোয়াখালী জিলাস্কুলের সপ্তম শ্রেণী দিবা ক-শাখার ছাত্র এবং ওই গ্রামের সোহেল রানা জুগুর বড় ছেলে।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, পিয়াল ও তার কয়েকজন সহপাঠী মিলে তাদের বাড়ির পাশে মাঠে ক্রিকেট খেলছিল। এ সময় ঝড়-বৃষ্টি শুরু হলে পিয়ালসহ তার সহপাঠীরা দৌড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যায়। একপর্যায়ে পিয়াল মাঠে ফেলে আসা তার জুতা আনতে গেলে বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। পরে তাকে হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় ধান কাটার সময় বজ্রপাতে আব্দুর রহিম (৫০) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার মোগড়া ইউনিয়নের দরুইন গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। রহিমের বাড়ি মৌলভীবাজার জেলায় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গাজীপুর: গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার মাটিকাটা এলাকায় বজ্রপাতে জাফরুল ইসলাম (২০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো পাঁচজন। তারা হলেন-শৌরভ, মনি সামান্ত, লতা, আলেয়া ও তাপসি।

সকাল ৮টার দিকে মাটিকাটা এলাকায় ইনক্রেডিবল ফ্যাশন লিমিটেড কারখানার সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জাফরুল গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ থানার হরিনাথপুর এলাকার মো. আব্বাস আলীর ছেলে। তিনি ওই কারখানার চেকম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

নওগাঁ: সাপাহারে সোনাভান বিবি (২২) নামে এক গৃহবধূ বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় স্বামী রুবেল হোসেনসহ ৩ জন আহত হয়েছেন। আজ দুপুরে উপজেলার শিমুলডাঙ্গা রামাশ্রম গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

সাপাহার থানার ওসি শামসুল আলম জানান, আজ দুপুরে নিজ বাড়িতে রান্নার কাজে নিয়োজিত থাকা অবস্থায় বজ্রপাতের ঘটনা ঘটলে ঘটনাস্থলেই ওই গৃহবধূর মৃত্যু হয়। এ সময় নিহতের স্বামী রুবেল হোসেন (৩০), পাশ্ববর্তী বাড়ির সালেহা বিবি (৪২) ও রাজু (১৫) নামে ২ জন আহত হন।

রাঙামাটি: বাঘাইছড়ি উপজেলায় বজ্রপাতে মনছুরা বেগম (৩৫) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। মনছুরা বেগম বাঘাইছড়ি উপজেলার মুসলিম ব্লক এলাকার বাসিন্দা বলে জানিয়েছেন বাঘাইছড়ি থানা পুলিশের (ওসি) আমির হোসেন। রোববার দুপুর ১টার দিকে রাঙামাটির উপজেলার মুসলিম ব্লক এলাকার বাসিন্দা মনছুরা বেগম বজ্রপাতে মারা যান।

ডেস্ক/ আলোকিত মুন্সীগঞ্জ

Be the first to comment on "সারাদেশে বজ্রপাতে ১৫ জনের মৃত্যু, আহত ১৫"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*